দক্ষ পিএইচপি ডেভেলপারদের জন্য সেরা ১০টি পিএইচপি ডেভেলপমেন্ট টুল

01 October 2023

1 min read

পিএইচপি (PHP) হচ্ছে ওয়েবসাইট আর ওয়েব অ্যাপ বানানোর ক্ষেত্রে সবচেয়ে দ্রুতগতিসম্পন্ন এবং সর্বাধিক ব্যবহৃত সার্ভার-সাইড স্ক্রিপ্টিং ল্যাঙ্গুয়েজ (server-side scripting language)। পাইথন (Python) ও রুবি (Ruby) থেকে পিএইচপিই অনেক ডেভেলপারদের বেশি পছন্দের হবার পেছনে বেশ কিছু কারণ রয়েছে। পিএইচপির রয়েছে বিস্তারিত ডকুমেন্টেশন, অসংখ্য রেডি-টু-ইউজ স্ক্রিপ্ট, বিশাল কমিউনিটি, আর ভালো সাপোর্টেড ফ্রেমওয়ার্ক। পিএইচপিকে সহজে কার্যকর করতে অভিজ্ঞরা কিছু পিএইচপি ডেভেলপমেন্ট টুল বানিয়েছেন, যা প্রোগ্রামিং দক্ষতা বাড়াতে সহায়তা করে। পিএইচপি টুলগুলো ভালো আইডিই (IDE-Integrated Development Environment) এর জন্য মানানসই করে বানানো হয়, যেখানে পিএইচপি ডেভেলপাররা দক্ষতার সাথে আকর্ষণীয়, উদ্ভাবনী আর ফিচারপূর্ণ পিএইচপি প্রজেক্ট বানাতে পারেন।

আজকের বাজার পিএইচপি টুলসে পরিপূর্ণ, আর এর মাঝে সবচেয়ে ভালোটাকে বেছে নেয়াটা একটা কঠিন কাজ বটে। এইখানে আমরা সেরা ১০টি পিএইচপি ডেভেলপমেন্ট টুল নিয়ে এসেছি, যা ওয়েব ডেভেলপার কমিউনিটির মনোযোগ কেড়েছে।


১. PHPStorm

লাইটওয়েইট, দারুণ দ্রুতগতির এবং বাধাহীন PHPStorm; পিএইচপি ডেভেলপমেন্ট টুল হিসেবে একটি আদর্শ চয়েস। এই পিএইচপি আইডিই বিভিন্ন পিএইচপি ফ্রেমওয়ার্ক যেমন Zend Framework, Symfony, Yii, Laravel ও CakePHP এবং আরও অনেক জনপ্রিয় কন্টেন্ট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম (CMS) যেমন Drupal, Magento, এবং WordPress এ ভালোভাবে কাজ করে। এই আইডিইতে রয়েছে মেজর ফ্রন্টএন্ড টেকনোলজি যেমন CSS, HTML5 এবং Javascript এর জন্য লাইভ এডিটিং সাপোর্ট, এছাড়াও রয়েছে কোড রিফ্যাক্টরিং (code refactoring), ইউনিট টেস্টিং (Unit testing) ও ডিবাগিং (debugging) এর সুবিধা। ডাটাবেজ (databases), ভার্সন কন্ট্রোল সিস্টেমস (version control systems), রিমোট ডিপ্লয়মেন্ট (remote deployment), কম্পোজার (composer), কমান্ড লাইন টুলস (command line tools) আর রেস্ট ক্লায়েন্ট (rest client), ইত্যাদিতে ইন্টিগ্রেট করার সুবিধাও ডেভেলপারদের দেয় এটি।

PHPStorm ফিচারস:

  • কোড সমাপ্তি (Code completion)
  • কোড রি-অ্যারেঞ্জার (Code re-arranger)
  • জিরো কনফিগারেশন ডিবাগিং (Zero Configuration Debugging)
  • নেটিভ জেনকোডিং সাপোর্ট (Native ZenCoding support)
  • VimEditor এর মত কার্যকরী প্লাগইন সাপোর্ট

PHPStormএর বিশেষত্ব:

  • সাপোর্টেড ভাষা: PHP, JavaScript, Visual Basic, C, C++, ও C#
  • সাপোর্টেড প্ল্যাটফর্ম: মাইক্রোসফট উইন্ডোজ, লিনাক্স ও ম্যাক ওএস এক্স


২. Zend Studio

বেশিরভাগ ওয়েব ডেভেলপাররা Zend Studio কে বেছে নেন এর অপটিমাল স্পিডের জন্যে। এখানে কোড লেখা ও ডিবাগিং করতে ডেভেলপারদের কোনো অতিরিক্ত প্রচেষ্টা ও সময় খরচ করা লাগে না। PHP 7 সাপোর্টের সাথে এটি X-ray, Xdebug, and Zend Debugger এর সাহায্যে পিএইচপি ডিবাগ করে। এই ব্যাপক পিএইচপি আইডিইর রয়েছে একাধিক ফিচার, এবং এটি বিভিন্ন সার্ভার যেমন ক্লাউডের সার্ভারে অ্যাপ্লিকেশন ডিপ্লয় করার জন্য সক্রিয়। Eclipse প্লাগইন কাজে লাগিয়ে ডেভেলপাররা চাইলে Zend Studioকে পরিবর্ধন করতে পারেন।

Zend Studio ফিচারস:

  • পিএইচপি কোড ইন্ডেক্সিং ও সার্চিং (Indexing and searching PHP Code)
  • ভ্যালিডেশনে দ্রুতগতির পারফরমেন্স
  • Zend Framework ও Zend_Tool ইন্টিগ্রেশন
  • Docker সাপোর্ট
  • Eclipse প্লাগইন এর সাপোর্ট

Zend Studioর বিশেষত্ব:

  • সাপোর্টেড ভাষা: PHP, JavaScript, Visual Basic, C, C++, ও C#
  • সাপোর্টেড প্ল্যাটফর্ম: মাইক্রোসফট উইন্ডোজ, লিনাক্স ও ম্যাক ওএস


৩. NuSphere PhpED

PhpED হল NuSphere এর একটি মালিকানাধীন একীভূত পিএইচপি ডেভেলপমেন্ট টুল। এই পিএইচপি আইডিই একটি অ্যাডভান্সড পিএইচপি এডিটর, প্রোফাইলার (Profiler), পিএইচপি ডিবাগার, ডাটাবেজ ক্লায়েন্ট এবং কোড ইনসাইট নিয়ে গঠিত। পুরো ওয়েব ডেভেলপমেন্ট প্রক্রিয়াটা যেন কম কষ্টকর হয় সেজন্য এই ইউটিলিটি ডেভেলপারদের বেশ কিছু টুলস আর টুইকস দেয়। কমার্শিয়াল পিএইচপি অ্যাক্সেলারেটর PhpExpress এর সাহায্যে PhpEd অ্যাপ্লিকেশন ডেভেলপমেন্ট প্রক্রিয়ার গতি বাড়ায়। জটিল ওয়েবসাইট ও ওয়েব অ্যাপ্লিকেশন ডেভেলপ করতে এটি একটি আদর্শ আইডিই। এটা JavaScript, HTML, ও CSS3 সাপোর্ট করে এবং PHP 7.1 এর জন্য বিশাল সাপোর্ট দেয়। ডেভেলপাররা যাতে তাদের কোডের মান বাড়াতে পারে সেজন্য এতে রয়েছে এর রিফ্যাক্টরিং সুবিধা। PhpED ডেভেলপারদের Laravel, Zend ও Yii এর মত জনপ্রিয় পিএইচপি ফ্রেমওয়ার্ক ব্যবহারের সুযোগ দেয়।

PhpED ফিচারস:

  • PhpExpress দিয়ে পিএইচপি অ্যাপ অ্যাক্সেলারেট করা
  • কম্পোজিট ফাইল এক্সটেনশনের জন্য সাপোর্ট
  • প্যারালাল ডিবাগিং
  • phpUnit দিয়ে সম্পূর্ণ ইন্টিগ্রেশন
  • পিএইচপি কোডের রিফ্যাক্টরিং

PhpEDর বিশেষত্ব:

  • সাপোর্টেড ভাষা: PHP, HTML, XML, CSS, Perl, Python, ও JavaScript
  • সাপোর্টেড প্ল্যাটফর্ম: উইন্ডোজ, ওয়েব, লিনাক্স, ম্যাক, আইপ্যাড


৪. Netbeans

একাধিক ভাষা সাপোর্ট করে এমন সব দারুণ ফিচার নিয়ে আসে এই টুল। Netbeans মূলত ব্যবহৃত হত জাভা ডেভেলপমেন্টের জন্য, তবে এর বর্তমান ভার্সন বেশ লাইটওয়েইট, দ্রুততর আর পিএইচপি ডেভেলপমেন্ট সার্ভিসের জন্য সাপোর্টিভ। এর রয়েছে অন্যান্য প্রোগ্রামিং ভাষা যেমন সি, সি++ আর এইচটিএমএল৫ এর সাপোর্টের জন্য এক্সটেনশন। বৃহদাকারের ওয়েব অ্যাপ ও ভাষা যেমন জাপানিজ, রাশিয়ান, ইংলিশ, ব্রাজিলিয়ান, পর্তুগিজ ও সিমপ্লিফায়েড চাইনিজ এর ডেভেলপমেন্ট সাপোর্ট করে এটি। ওপেন-সোর্স এই পিএইচপি ডেভেলপমেন্ট টুলটি প্রায় সব জনপ্রিয় পিএইচপি ফ্রেমওয়ার্কের সাথেই কাজ করতে পারে, যার মধ্যে রয়েছে Zend, Symfony 2, CakePHP, FuelPHP, Smarty এবং WordPress। NetBeans PHP আইডিই, পিএইচপির সর্বশেষ ভার্সনগুলোর জন্য নির্দিষ্ট নানারকম ফিচার নিয়ে আসে।

NetBeans ফিচারস:

  • কোড ফরম্যাটিং ও ফোল্ডিং
  • স্মার্ট কোড কমপ্লিশন
  • গেটার সেটার (Getter setter) জেনারেশন
  • ট্রাই/ক্যাচ (Try/catch) কোড কমপ্লিশন
  • সিনট্যাক্স হাইলাইটার

NetBeans এর বিশেষত্ব:

  • সাপোর্টেড ভাষা: PHP, JavaScript, C, C++, ও HTML5
  • সাপোর্টেড প্ল্যাটফর্ম: উইন্ডোজ, লিনাক্স, ম্যাকওএস, ও সোলারিস


৫. Cloud9

Cloud9 একটি ওপেন-সোর্স ক্লাউড আইডিই যা শতাধিক প্রোগ্রামিং ভাষার (PHP, C, C++, JavaScript, Python ইত্যাদি)ডেভেলপমেন্ট এনভায়রমেন্ট সরবরাহ করে। প্রি-কনফিগারড এনভায়রনমেন্টের সাহায্যে ডেভেলপাররা নিমেষেই কোডিং শুরু করে দিতে পারেন আর ব্রাউজার কম্প্যাবিলিটি টেস্টিং ও লাইভ প্রিভিউ’র মত ফিচার ব্যবহার করে ওয়েব অ্যাপ্লিকেশন বানাতে পারেন। কোলাবরেটিভ কোডিং ফিচার ব্যবহার করে তারা তাদের সহকর্মীদের সাথে কোলাবরেটও করতে পারেন। সার্ভারবিহীন অ্যাপ বানানোর ক্ষেত্রে Cloud9 নিয়ে আসে এক নির্ঝঞ্ঝাট অভিজ্ঞতা, আপনাকে দেয় রিসোর্স ডিফাইন করা, সার্ভারবিহীন অ্যাপ এক্সিকিউট এবং রিমোটলি ডিবাগ করার সুযোগ। আপনার পিয়ারদের সাথে আপনি আপনার ডেভেলপমেন্ট এনভায়রনমেন্ট শেয়ার করতে পারেন, আর পারেন প্রোগ্রাম পেয়ার, এমনকি রিয়েল-টাইম ইনপুট ট্র্যাক করতেও। Cloud9 সার্ভারবিহীন অ্যাপ্লিকেশন তৈরির ঝামেলাহীনতা নিশ্চিত করে, আপনাকে সুবিধা দেয় ব্রাউজারে কোডিং করার।

Cloud9 ফিচার:

  • রিয়েল-টাইম ল্যাঙ্গুয়েজ অ্যানালাইসিস (Real-time language analysis)
  • ট্যাবড (Tabbed) ফাইল ম্যানেজমেন্ট
  • ইন্টিগ্রেডেড ডিবাগার
  • বিল্ট-ইন ইমেজ এডিটর
  • কোড রিফরম্যাটিং (Code re-formatting)

Cloud9 এর বিশেষত্ব:

  • সাপোর্টেড ভাষা: PHP, JavaScript, C, C++, ও HTML5
  • সাপোর্টেড প্ল্যাটফর্ম: উইন্ডোজ, লিনাক্স, ম্যাকওএস, ও সোলারিস


৬. Aptana Studio

Aptana Studio একটি ওপেন সোর্স পিএইচপি ডেভেলপমেন্ট টুল যা বিভিন্ন সার্ভার-সাইড আর ক্লায়েন্ট-সাইড ওয়েব টেকনোলজির সাথে ইন্টিগ্রেশনে ব্যবহৃত হয়। PHP, Python, CSS3, Ruby on Rails, Ruby এবং HTML5 হল এমনই কিছু টেকনোলজি। এটি ডিবাগার এবং কমান্ড লাইন ইন্টারফেস সাপোর্ট করে যাতে করে পিএইচপি ডেভেলপমেন্ট সহজতর হয়। এটি পিএইচপি প্রোগ্রামারদের একটি এনভায়রনমেন্টে ওয়েব অ্যাপ্লিকেশন বিল্ডিং ও টেস্টিংএর সুযোগ দেয়। এর সাথে আছে SFTP, FTP, ও আইডিই কাস্টমাইজেশন। এই শক্তিশালী ওয়েব ডেভেলপমেন্ট ইঞ্জিন; Eclipse এর ফ্লেক্সিবিলিটির উদ্দেশ্য পূরণ করে, আর শীর্ষস্থানীয় ওয়েব ব্রাউজারে প্রত্যেকটি এলেমেন্টের জন্য সাপোর্টের ডিটেইল গঠন করে। Aptana Studio একটি উচ্চ পারফরমেন্সসম্পন্ন পিএইচপি আইডিই এবং এতে রয়েছে অসংখ্য আকর্ষণীয় ফিচার, যা আপনার কার্যক্ষমতা বৃদ্ধি করবে।

Aptana Studio ফিচার:

  • ব্রেকপয়েন্ট নির্ধারণ, এক্সিকিউশন নিয়ন্ত্রণ ও ভ্যারিয়েবল ইন্সপেক্ট সুবিধা
  • সর্বশেষ HTML5 স্পেসিফিকেশন সাপোর্ট
  • পিয়ারদের সাথে merge, pull ও push অ্যাকশনের মাধ্যমে কোলাবরেশন
  • আইডিই কাস্টমাইজেশন
  • Git Integration এবং বিল্ট-ইন টার্মিনাল


Aptana এর বিশেষত্ব:

  • সাপোর্টেড ভাষা: PHP, JavaScript, Ajax, HTML ও Ruby on Rails
  • সাপোর্টেড প্ল্যাটফর্ম: উইন্ডোজ, লিনাক্স, ম্যাকওএস এক্স, ও Eclipse এর প্লাগইন।


৭. CodeLobster

CodeLobster software farm এর CodeLobster আইডিই হচ্ছে পিএইচপি ডেভেলপমেন্ট টুলসের মধ্যে সবচেয়ে জনপ্রিয় টুলগুলোর একটি, যা এর কমিউনিটি দেখে বিবেচনা করা যায়। এটি বেশিরভাগ পিএইচপি ফ্রেমওয়ার্ক যেমন Symfony, Laravel, CodeIgniter, CakePHP, Magento, Joomla, এবং Drupal ইত্যাদি সাপোর্ট করে। CodeLobster আইডিই স্ট্রিমলাইন করে। এখানে আর্গুমেন্ট, ফাংশন, অ্যাট্রিবিউট আর ট্যাগের নাম মনে রাখার কোনো দরকার পড়ে না। HTML, JavaScript, PHP, and CSS এর জন্যে এতে রয়েছে অটোকমপ্লিট ফিচার। এর ইন্টারনাল পিএইচপি ডিবাগারের সাহায্যে আপনি আপনার কোড লোকালি যাচাই করতে পারবেন। এছাড়াও এই পিএইচপি টুল অটোমেটিকভাবে বর্তমান সার্ভারের সেটিং সনাক্ত করে এবং সম্পর্কিত সকল ফাইল কনফিগার করে নেয় যাতে আপনি ফ্রি ডিবাগার ব্যবহার করতে পারেন। এছাড়াও এটি গুরুত্বপূর্ণ সব CMS যেমন Drupal, WordPress, Magento, ও Joomla ইত্যাদি সাপোর্ট করে।

CodeLobster ফিচার:

  • সিনট্যাক্স হাইলাইটিং
  • SQL ম্যানেজার
  • কোড ভ্যালিডেটর (Code validator)
  • কিওয়ার্ড, DOM এলেমেন্ট ও এদের প্রপার্টির অটোকমপ্লিট সুবিধা
  • ফাংশন প্যারামিটার ডিসপ্লে (Function Parameters Display)

CodeLobster এর বিশেষত্ব:

  • সাপোর্টেড ভাষা: PHP, JavaScript, HTML ও CSS
  • সাপোর্টেড প্ল্যাটফর্ম: উইন্ডোজ, ফেডোরা, লিনাক্স, উবান্টু, ডেবিয়ান, ম্যাকওএস ও মিন্ট।


৮. Sublime Text

Sublime Text হচ্ছে পিএইচপি ডেভেলপমেন্টের জগতে শীর্ষস্থানীয় একটি টেস্ট এডিটর। তবে, এটা কোনো আইডিই নয়; কিছু প্লাগইন আর প্যাকেজ ইন্সটল করে আপনি এটাকে পিএইচপি অ্যাপ্লিকেশন ডেভেলপ করার জন্য একটা মানানসই এডিটর হিসেবে ব্যবহার করতে পারবেন। এই ক্রস-প্ল্যাটফর্ম সোর্স কোড এডিটর বেশ কিছু প্রোগ্রামিং ও মার্কআপ ল্যাঙ্গুয়েজ নেটিভভাবে সাপোর্ট করে। এটা উচ্চমাত্রায় কাস্টমাইজেবল এবং এতে রয়েছে একটি কাস্টম ইউআই টুলকিট।

Sublime Text ফিচার:

  • স্প্লিট এডিটিং (Split editing)
  • ইন্সট্যান্ট প্রজেক্ট সুইচ (Instant Project Switch)
  • ভালো কমান্ড প্যালেট
  • Distraction free মোড
  • প্লাগইন API

Sublime Text এর বিশেষত্ব:

  • সাপোর্টেড ভাষা: সকল জনপ্রিয় ল্যাঙ্গুয়েজ
  • সাপোর্টেড প্ল্যাটফর্ম: উইন্ডোজ, লিনাক্স ও ম্যাকওএস


৯. PHPDebugbar

PHPDebugbar হল একটি পিএইচপি ডিবাগার যেটি যেকোনো প্রজেক্টের সাথে রান করতে পারে এবং একটা বিস্তৃত মাত্রার ওয়েব অ্যাপ থেকে ডাটা দেখাতে পারে। এই পিএইচপি ডেভেলপমেন্ট টুলে রয়েছে দুইটি অংশ: mainDebugBar অবজেক্ট এবং ডাটা কালেক্টর ও রেন্ডার। একটি StandardDebugBar এ রয়েছে কালেক্টরের একটি প্রি-কনফিগারড বিল্ট-ইন সেট।

পিএইচপির সাথে এটা দিয়ে আপনি JavaScript আর HTML ও সামলাতে পারবেন। এছাড়াও, PHPDebugbar CSS এলেমেন্ট ইন্সপেক্ট করতে এবং নেটওয়ার্ক মনিটর করতে পারে। ডেভেলপাররা প্রত্যাশা করে এমন আরও ফিচার নিয়ে আসার মাধ্যমে এটা বেশ দারুণ এক ওপেন সোর্স সমাধান হয়ে দাঁড়িয়েছে। যেকোনো ওয়েব অ্যাপ্লিকেশন থেকে ডাটা প্রোফাইলিংএর জন্য এটা হতে পারে সবচেয়ে ভালো অপশন। এর সাহায্যে আপনি সহজে ইন্টিগ্রেট করার জন্য নিজের কালেকশন বানাতে পারেন।

PHPDebugbar ফিচার:

  • নেটওয়ার্ক ট্রাফিক মনিটর করা
  • AJAX রিকুয়েস্ট হ্যান্ডেল করা
  • Debugbar এ সরাসরি লগ ও ডিবাগ করা
  • দ্রুত এবং সহজে ব্যবহার করার মত ইন্টারফেস
  • Preview config ও application config

PHPDebugbar এর বিশেষত্ব:

  • সাপোর্টেড ভাষা: PHP, Ruby, .Net ও Java
  • সাপোর্টেড পিএইচপি ভার্সন: PHP 5.5 এবং পরবর্তী


১০. Eclipse

আপনি যখন অনলাইনে সেরা পিএইচপি ডেভেলপমেন্ট টুল খুঁজতে যাবেন, বেশিরভাগ সার্চ ফলাফলেই আপনি Eclipse এর নাম পাবেন। এটা একটা পরিপূর্ণ ডেভেলপমেন্ট টুল, সেরা পিএইচপি টুলের তালিকায় এটা একটা। বিস্তৃত সীমানার প্লাগইন থেকে বাছাই করার স্বাধীনতা থাকায় এতে পিএইচপি কোড ডেভেলপ ও সরলীকরণ করা খুব সহজ। এখানে আপনি আইডিইকে কাস্টমাইজ ও এক্সটেন্ড করে প্রজেক্টের চাহিদা পূর্ণ করতে পারবেন। এই পিএইচপি আইডিই GUI ও non-GUI উভয় অ্যাপ্লিকেশনই সাপোর্ট করতে পারে। বড় পরিসরের পিএইচপি প্রজেক্টের জন্য আদর্শ ক্রস-প্ল্যাটফর্ম পিএইচপি এডিটর এটি।

Eclipse ফিচার:

  • সিনট্যাক্স হাইলাইটিং
  • কন্টেন্ট অ্যাসিস্ট
  • কোড টেমপ্লেট
  • কোডের ফরম্যাটিং
  • কোড ন্যাভিগেশন

Eclipse এর বিশেষত্ব:

  • সাপোর্টেড ভাষা: ABAP, Ada, C, C++, Haskell, COBOL, D, JavaScript, Fortran, Java, Julia, Perl, Lua, NATURAL, PHP, Prolog, Ruby, Python, R, Lasso, Rust, Scala, Groovy, Scheme, Clojure, এবং Erlang
  • সাপোর্টেড প্ল্যাটফর্ম: উইন্ডোজ, লিনাক্স, ম্যাকওএস ও সোলারিস।

এখানে উল্লেখিত প্রত্যেকটি টুলই অসাধারণ ফিচার ও ক্ষমতায় পরিপূর্ণ, যার সাহায্যে আপনি দ্রুত ও সহজে পিএইচপি ওয়েবসাইট বানাতে পারবেন। তবে শুধু এগুলোই যে মার্কেটে পাওয়া যাবে এমন নয়। এগুলো ছাড়াও অনেক ফ্রি ও পেইড পিএইচপি টুলস আপনি বাজারে পাবেন।

Share this article

RELATED ARTICLES

What Are The Benefits Of Flutter App Development?

ফ্লাটার অ্যাপ ডেভেলপমেন্টের সুবিধা || What Are The Benefits Of Flutter App Development? || About Flutter App Benefits টেকনোলজির ব্যবহার মানুষের জীবনকে আগের তুলনায় অনেক সহজ করেছে। ধরুন, আপনি যদি কোডিং লেখা ছাড়াই, কোনো অ্যাপের মাধ্যমে , একটা লাইন ইনপুট দিলেন, আর সাথে সাথে এর নির্ভুল একটা কোড পেয়ে যান, তাহলে কি আপনার আর কোডিং শেখার  মতো কাজটি আর করতে হবে? আপনি নিশ্চয়ই আর কোডিং শিখতে যাবেন না। কেননা, মানুষ যে উপায়ে সহজে ও নির্ভুল ভাবে কোন একটি কাজ করতে পারে, সে সেটিই সবসময় ইউজ করে। তাই বর্তমানে ক

11 July 2024

1 min read

ফ্লাটার কি ফ্রন্টেড নাকি ব্যাকেন্ড? ।। Is Flutter Frontend Or Backend (Uses of Flutter)?

অ্যাপ ডেভেলমেন্টের এই যুগে কতশত ফ্রেমওয়ার্কের আলাপ আসে আর যায়, তবে কিছু কিছু ফ্রেমওয়ার্ক যেন অ্যাপ ডেভেলমেন্টের জগতকেই পালটে দেয়। ২০১৫ সালে গুগলের আনা একটি ফ্রেমওয়ার্ক ফ্লাটার ঠিক তেমনি একটি ফ্রেমওয়ার্ক। মোবাইল অ্যাপ ডেভেলমেন্টকে টার্গেট করে ডেভেলপ করা এই ফ্রেমওয়ার্কটির পটেনশিয়াল দিনদিন বেড়েই চলছে।  আর এই অ্যাপ ডেভেলপমেন্টের ক্ষেত্রে, যে দুইটি সাইড সুপ্রিমেসি নিয়ে আছে সেগুলো হল: ফ্রন্টএন্ড এবং ব্যাকএন্ড।  ফ্রন্টএন্ড হল চকচকে ঝকঝকে ইন্টারফেস যার সাথে ইউজাররা ইন্টারঅ্যাক্ট করে, আর ব্যাকএন্ড মূলত

08 July 2024

1 min read

ডাটা সায়েন্টিস্ট হওয়ার ৮ টি স্টেপ

আপনার কি মনে হচ্ছে না, ডেটা সাইনটিস্ট হওয়ার এখনি সময়? একবার চারপাশে খেয়াল করুন তো! তাহলে দেখতে পাবেন ডেটা সায়েন্স এখন সব জায়গায়। একের পর এক, ওয়ার্ল্ডওয়াইড কোম্পানিগুলো সবচেয়ে ডাইভার্স প্রবলেমগুলোর সলিউশনের জন্য ডেটা সায়েন্সের দিকে ঝুঁকছে।  এই পরিস্থিতি ডেটা সাইনটিস্টদের জব সেক্টর ও স্যালারি স্ট্রাকচার কিন্তু খুবই অ্যাডভান্টেজ পজিশনে আছে। তাই আর দেরি কেন?? ৮ টি স্টেপ ফলো করে, আপনিও হতে পারেন একজন ডাটা সায়েন্টিস্ট। 1. Learn data wrangling, data visualization, and reporting  আপনি যখন ডেটা সায

15 May 2024

দ্য ফিউচার অফ আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স

আমি যদি সাম্প্রতিক সময়ের কথা বলি সেখানে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা (আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স) বা AI বেশ বিপ্লব ঘটিয়েছে। হেলথকেয়ার থেকে শুরু করে ট্রান্সপোর্ট, এডুকেশন থেকে শুরু করে এন্টারটেইনমেন্ট এর ক্ষেত্রে AI এর ব্যবহার ব্যাপক। আর তাই ধীরে ধীরে আমরা নির্ভর হয়ে পড়ছি AI এর উপর। কিন্তু এই প্রযুক্তির ভবিষ্যৎ কী? আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স আমাদের জীবনকে আরও ভালো করে তুলতে ব্যবহার করা হবে নাকি আমাদের অস্তিত্বের জন্য হুমকি সৃষ্টি করবে? এই প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার আগে আমি একটি সাম্প্রতিক ডাটা শেয়ার করি। 2023

13 May 2024

অনলাইন লাইভ স্কিল ডেভেলপমেন্ট প্ল্যাটফর্ম।

ডাউনলোড করুন ওস্তাদ অ্যাপ

কমিউনিটি -এর সাথে কানেক্টেড থাকতে